মতলবে ডা. মোজাম্মেল হক চিরনিদ্রায় শায়িত

নিউজিল্যান্ডে সন্ত্রাসীর গুলিতে নিহত

নিউজিল্যান্ডে সন্ত্রাসীর গুলিতে নিহত মতলবের ডা. মোজাম্মেল হক সেলিমের জানাযায় উপস্থিতির একাংশ। -ইল্শেপাড়

মোজাম্মেল প্রধান হাসিব
নিউজিল্যান্ডে সন্ত্রাসীর গুলিতে নিহত মতলবের ডা. মোজাম্মেল হক সেলিমের লাশ দাফন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বাদ জোহর জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন করা হয়।
এদিকে ডা. মোজাম্মেল হক সেলিমের মৃত্যুতে স্বজনদের মাঝে চলছে শোকের মাতম। প্রিয় সন্তানকে হারিয়ে প্রায় বাকরুদ্ধ তার মা। আত্মীয়-স্বজনের কান্নায় ভারি হয়ে আছে চারদিক।
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে আল নুর জামে মসজিদে উগ্রবাদী সন্ত্রাসীর গুলিতে গত ১৫ মার্চ নিহত হন মতলব দক্ষিণ উপজেলার খাদেরগাঁও ইউনিয়নের হুরমহিষা গ্রামের মৃত মো. হাবিব উল্লাহ মিয়াজীর ছেলে ডা. মোজাম্মেল হক সেলিম।
নিহত হওয়ার ১২ দিন পর গত বুধবার রাত ১১টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ডা. মোজাম্মেল হক সেলিমের লাশ এসে পৌঁছলে তার আত্মীয়-স্বজনরা লাশ গ্রহণ করেন। আল আমিন মেডিকেল সার্ভিসের লাশবাহী ফ্রিজিং গাড়িতে করে গতকাল ভোর ৬টায় মোজাম্মেল হক সেলিমের লাশ তার গ্রামের বাড়িতে পৌঁছলে আশপাশের এলাকার হাজার-হাজার লোকজন তাকে এক নজর দেখার জন্য তার বাড়িতে ভীড় জমায়।
জানা যায়, গত ২৪ মার্চ বাংলাদেশের একটি ফ্লাইটে নিউজিল্যান্ডে যান নিহতের বড় ভাই মো. শাহাদাত হোসেন মিয়াজী। গত মঙ্গলবার নিউজিল্যান্ড সময় সকাল ১১টায় নিহতের বড় ভাইয়ের কাছে ডা. মোজাম্মেল হক সেলিমের লাশ হস্তান্তর করেন নিউজিল্যান্ড সরকার। গতকাল বৃহস্পতিবার বাদ জোহর তার বাড়ি মতলব দক্ষিণ উপজেলার খাদেরগাঁও ইউনিয়নের হুরমহিষা গ্রামে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়।
জানাযার আগে ডা. মোজাম্মেল হক সেলিমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহিদুল ইসলাম, খাদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ মন্জুর হোসেন রিপন, প্যালেন চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল করিম সেলিম, সাবেক ইউপি সদস্য মোস্তফা কামাল, খাদেরগাঁও ইউনিয়ন তরুণ লীগের আহ্বায়ক মো. মাসুদ প্রধান প্রমুখ। জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে নিহতের লাশ দাফন করা হয়। জানাযায় ইমামতি করেন নিহতের ভাতিজা মো. আল-আমিন মিয়াজী।
সেলিমের বড় ভাই শাহাদাত হোসেন মিজি বলেন, তার ছোট ভাই সেলিম গত সাড়ে ৩ বছর অর্থাৎ ২০১৫ সালে নিউজল্যান্ডে পড়ালেখার জন্য যান। দেশে একটি প্রাইভেট মেডিকেলের ডেন্টালে পড়াশুনা শেষ করেন তিনি। তাকে নিয়ে দেখা স্বপ্ন আর পূরণ হলো না। সরকারিভাবে সুযোগ করে দেয়ায় তিনি নিউজিল্যান্ডে গিয়ে মরদেহ রিসিভ করেছেন। জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে। ভাইকে পড়াতে গিয়ে তারা ব্যাংকে যে ঋণ হয়েছেন তা পরিশোধ করার জন্য সরকারের কাছে সহযোগিতা কামনা করেন।
উল্লেখ্য, গত ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ আল নুর জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে গেলে উগ্রবাদী খ্রিস্টানের গুলিতে নিহত হন ডা. মোজাম্মেল হক সেলিম।