মতলব উত্তরে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৩ সদস্য আটক

মেঘনা নদীতে ডাকাতিকালে



মতলব উত্তর ব্যুরো
মতলব উত্তর উপজেলার মেঘনা নদীতে বাহাদুরপুর এলাকায় দুই হাজার বস্তা সিমেন্ট ভর্তি ট্রলারে ডাকাতিকালে ৩ আন্তঃজেলা ডাকাত সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত সোমবার রাত ৯টায় তাদের আটক করা হয়।
আটকরা হলেন- মুন্সীগঞ্জ জেলার কালিচর গ্রামের মোহাম্মদ বেপারীর ছেলে মো. রেজাউল (২৫), একই গ্রামের মতিন বেপারীর ছেলে মো. ইন্তাজ বেপারী (৩৮) ও গিয়াস উদ্দিন বেপারীর ছেলে আবুল বাশার (২০)।
এ ঘটনায় ট্রলারের সুকানী শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট উপজেলার কুচাইপট্টি গ্রামের মালেক সরদারের ছেলে আ. ছাত্তার (২৮) বাদী হয়ে থানায় ডাকাতি মামলা দায়ের করেছেন। বাদী ও তার সাথে ট্রলারে থাকা মিস্ত্রি একই জেলার হাদিস সর্দারকান্দি গ্রামের হাসান সিকদারের ছেলে মোখলেছ শিকদার (৫৫) এবং মুলগাঁও গ্রামের ফজল করিমের ছেলে মো. হাবিব (২২) আহত হয়েছেন।
পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার সময় বাদী কর্তৃক চালিত সিমেন্ট ভর্তি একটি ট্রলার নারায়ণগঞ্জ থেকে শরীয়তপুর যাওয়ার উদ্দেশে মতলব উত্তরের বাহাদুরপুর নামক স্থানে পৌঁছলে ডাকাত সদস্যরা ট্রলারযোগে এসে তাদের জিম্মি করে ফেলে। পরে নদীর মাঝখানে ট্রলার নোঙর করে রাখে। ট্রলার মালিক খবর পেয়ে মতলব উত্তরের মোহনপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়িকে জানালে থানা পুলিশ ও নৌ পুলিশ তাদেরকে রাত ৯টার দিকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। ডাকাতিকালে ৪ জন ৩ ডাকাতকে আটক করা হয়, অপরজন পালিয়ে যায়। মঙ্গলবার তাদের ডাকাতি মামলায় চাঁদপুর কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে। ধৃত আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে একই গ্রামের হোসেন বেপারীর ছেলে মো. আফজাল (২৮) পালিয়ে গেছে বলে স্বীকারোক্তি দেয়।
বাদী আ. ছাত্তার জানান, ট্রলারে দুই হাজার বস্তা সিমেন্ট ছিল, যার আনুমানিক মূল্য ৮ লাখ টাকা। আমাদের সাথে থাকা দুইটি মোবাইল যার মূূল্য ১১ হাজার টাকা ও সাথে থাকা নগদ ১২ হাজার টাকা নিয়ে যায় ডাকাত দল। তাদের সাথে দেশীয় ধারালো অস্ত্র ছিল। আমাদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দিয়েছে তারা।
মতলব উত্তর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. নাসির উদ্দিন মৃধা বলেন, প্রথমে নৌ পুলিশের কাছে ডাকাতির খবর আসে। পরবর্তীতে থানা পুলিশ ও নৌ পুলিশের যৌথ অভিযানে ৩ ডাকাত সদস্যকে আটক, ডাকাতি হওয়া ট্রলার, ডাকাতি কালে ব্যবহৃত অস্ত্র ও মালামাল উদ্ধার করি। আটক তিন ডাকাত সদস্যকে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।