হাজীগঞ্জের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মনিরের মালামাল ক্রোক

আদালতের নির্দেশে

মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
আদালতের নির্দেশে হাজীগঞ্জের বাকিলা গ্রামের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মনিরের বাসার মালামাল ক্রোক করেছে হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হাজীগঞ্জ সার্কেল) মো. আফজাল হোসেনের উপস্থিতিতে মাদক ব্যবসায়ী মনিরের ঘর থেকে এ মালামাল ক্রোক করা হয়। মনির বাকিলা গ্রামের সর্দার বাড়ির মজিবুর রহমান ওরফে মজিবের ছেলে।
থানা সূত্রে জানা গেছে, মনির উপজেলার চিহ্নিত একজন মাদক ব্যবসায়ী। সে বাকিলাসহ আশপাশে এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে পাইকারী এবং খুচরা মাদক বিক্রি করে আসছে। খুচরাভাবে মাদক বিক্রি করার জন্য এলাকায় রয়েছে তার বেশ কিছু মাদক বিক্রেতা। ইতোমধ্যে মাদকসহ বেশ কয়েকবার সে হাজীগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে আটক হয়ে জামিনে বেরিয়ে আসে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে মনির এলাকায় সিন্ডিকেট তৈরী করে ইয়াবার ব্যবসা করে আসছে। এক সময় সে কুখ্যাত মাদক বিক্রেতা খলাপাড়ার জাকিরের এজেন্ট হিসেবে মাদক বিক্রি করতো। পরে নিজেই মাদকের পাইকারী ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। সে নাবালক ছেলেদের দিয়ে মাদক পাচার এবং বিক্রি করতো।
মনির বাকিলা বাজারের ফকির বাজার সড়কের বালুর মাঠ, হাসপাতালের সামনের গেট, মজুমদার মার্কেটসহ তৎসংলগ্ল এলাকায় ইয়াবা বিক্রি করে থাকে। এছাড়া বাকিলা এলাকায় একাধিক ইয়াবার পাইকারী ব্যবসায়ী রয়েছে। বাকিলা বাজারের এক স্থান এক কারবারির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। প্রতি কারবারীর নির্দিষ্ট ক্রেতা রয়েছে। এক কারবারীর খুচরা ক্রেতার কাছে আরেক কারবারী মাল (ইয়াবা) বিক্রি নিষিদ্ধ রয়েছে এই বাজারে।
বাকিলা বাজার ছাড়াও বাকিলা চৌধুরী বাড়ির বাগান, রেললাইন এলাকা, গরুর বাজার এলাকা, মাইলঘরসহ বেশ কয়েকটি স্পষ্টে মাদক বিক্রির এই বাজার বসে বাকিলায়। এইসব কারবারিদের বেশ কয়েকজনকে ইতোমধ্যে পুলিশের অভিযানে আটক হয়েছে। আবার তারা জামিনে বের হয়ে আবার মাদক ব্যবসার সাথে জড়িয়েছে।
এ ব্যাপারে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন রনি জানান, আদালতের নির্দেশে এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হাজীগঞ্জ সার্কেল) মো. আফজাল হোসেনের উপস্থিতিতে মাদক কারবারী মনিরের বাসার মালামাল জব্দ করা হয়েছে।
মাদকের বিষয়ে পুলিশকে তথ্য দেয়ার অনুরোধ করে তিনি বলেন, যিনি তথ্য দিবেন তার নাম-ঠিকানা গোপন রাখা হবে। মাদকের বিরুদ্ধে আমার নিয়মিত অভিযান অব্যাহত আছে। জনসাধারণ সচেতন হলে মাদকমুক্ত সমাজ বিনির্মাণ সহজ হবে বলে তিনি জানান। এ সময় পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ আবদুর রশিদসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।