কুমিল্লার দেবীদ্বারে ক্ষতিগ্রস্ত শত-শত কৃষকের মানববন্ধন

শত বছরের খাল ভড়াটের প্রতিবাদে

জাহাঙ্গীর আলম ইমরুল
কুমিল্লার দেবীদ্বারে শতছরের পুরনো প্রবাহমান একটি জনগুরুত্বপূর্ণ খালের ২শ’ ফুট জায়গা ভরাট করার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে ক্ষতিগ্রস্থ শতাধিক কৃষক। বুধবার (২৫ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার সুবিল ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর গ্রামের কেন্দ্রীয় গোরস্থানের সামনে মানববন্ধন করেন স্থানীয় ভোক্তভূগী কৃষকরা।
কৃষকরা জানান, ব্রিটিশ শাসনামলে এই এলাকার পানি নিষ্কাশন ও কৃষির উন্নয়নে খালটি খনন করা হয়েছিল। যে খালটির শাখা প্রশাখা সালদা, মরজড়া, বুড়ি, তিতাস ও গোমতী নদীর সাথে সংযোগ রয়েছে। ২০১৯ সালের প্রথমদিকে আব্দুল্লাহপুর কবরস্থানের প্রশস্থকরণের নামে কবরস্থান কমিটি ওই খালটির প্রায় ২শ’ ফুট অংশ ভরাট করেন। আমরা বাঁধা দেয়ায় কমিটির পক্ষ থেকে আশ্বাস দেয়া হয়েছিলো ৬মাস পরেই খালটি খনন অথবা মোটা পাইপ দিয়ে পানিনিষ্কাশনের ব্যাবস্থা করা হবে। এরই মধ্যে দু’বছর অতিবাতি হয়ে গেলেও গোরস্থান কমিটির পক্ষ থেকে খাল খননের কোন ব্যাবস্থা না নেয়ায় কৃষিকাজে ব্যাপক ক্ষতি সাধন হতে থাকে। চলতিবছর কৃষকদের নিজস্ব উদ্যোগে অব্দুল্লাহপুর সড়কের পূর্বপাশে বাঁধ দিয়ে আবাদ করায় এ বিলের ফসল কিছুটা ভালো হলেও রাস্তার পশ্চিম পাড়সহ অন্যান্য কৃষকের ফসল উৎপাদনে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হন।
ভুক্তভোগী কৃষক মো. ময়নাল হোসেন জানান, খাল ভরাটের প্রতিবাদে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবরে খালটি উদ্ধার এবং পুন:খননের আবেদন জানিয়ে একাধিকবার আবেদন করা হলেও কোন ফল হয়নি। এ খালটিকে প্রবাহ বন্ধ থাকায় শিবনগর, তাল্লুকের পাত্তর, আব্দুল্লাহপুর, ওয়াহেদপুর, কানিবিল, রামনগর, নারায়নপুর এলাকাসহ কয়েকটি গ্রাম ও বিলের কয়েকশত একর জমির ফসলে বিলের পানি আটকে থেকে ক্ষতিগ্রস্থই নয়, বেশকিছু বাড়ি-ঘরও পানির নিচে তলিয়ে যায়।
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, অভিযোগ পেয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছি।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান বলেন, তদন্তে খাল ভরাট হলে পুনঃখননসহ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।
২৬ আগস্ট, ২০২১।