এক সাথে ৩ কাজ করছেন হাজীগঞ্জের ইউএনও

হাজীগঞ্জে খাদ্য সহায়তাপ্রাপ্ত কয়েকজনের সাথে ইউএনও বৈশাখী বড়ুয়া। -ইল্শেপাড়


মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
করোনা ভাইরাসের প্রতিকারে এক সাথে তিন কাজ করছেন হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়া। গত ২৬ মার্চ থেকে ধারাবাহিকভাবে প্রতিদিন তিনি হাজীগঞ্জ পৌরসভাসহ উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ঘুরে নিম্নবিত্ত পরিবারসহ দুঃস্থ, অসহায় ও প্রতিবন্ধী পরিবারের সদস্যদের হাতে খাদ্য সামগ্রী (চাল, ডাল, তেল, চিনি, লবণ, চিড়া, নুডুলস ও সাবান) তুলে দিচ্ছেন।
খাদ্য বিতরণকালে গ্রামাঞ্চলের হাট-বাজারসহ পাড়া-মহল্লার খোলা চা-দোকানে আড্ডা দেয়া এবং বিভিন্ন মাঠে খেলারত কিশোর-যুবকসহ জনসমাগমমূলক স্থানে করোনা ভাইরাসের ক্ষতিকর দিকগুলো উল্লেখ করে তাদের সতর্ক করছেন ইউএনও বৈশাখী বড়ুয়া। এ সময় তিনি সরকারি বিধি-নিষেধ না মানায় এবং জনসচেতনতার লক্ষ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালতও পরিচালনা করছেন।
এছাড়া বৈশাখী বড়ুয়া যখন যে ইউনিয়নে যান তখন সে ইউনিয়নে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারিভাবে গ্রহণকৃত কর্মসূচী ও নির্দেশনা বাস্তবায়নের বিষয়টি মনিটরিং (তদারকি) করে থাকেন। ইউএনও এসব কাজে সহযোগিতা করছেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কানিজ ফাতেমা এবং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. জাকির হোসাইনসহ সরকারি কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

হাজীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক হাট-বাজারগুলোতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ন্যায্য ও হ্রাসকৃত মূল্যে বিক্রির ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। -ইল্শেপাড়


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ মার্চ (বৃহস্পতিবার) থেকে আজ পর্যন্ত আড়াই শতাধিক নিম্নবিত্ত পরিবারসহ দুস্থ, অসহায় ও প্রতিবন্ধী পরিবারের সদস্যদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী (চাল, ডাল, তেল, চিনি, লবণ, চিড়া, নুডুলস ও সাবান) বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া পৌরসভাসহ সব ইউনিয়ন পরিষদ থেকেও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।
এদিকে ইউএনও বৈশাখী বড়ুয়ার জনসেবামূলক আন্তরিক কার্যক্রমের প্রশংসা করছেন উপজেলাবাসী। তারা ইউএনও’র প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন। এবং করোনা ভাইরাসে সংক্রমণ ঠেকাতে সবধরনের জনসমাগমকে শক্ত হাতে প্রতিরোধ করার আহবান জানান তারা।
এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়া জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এবং উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ গ্রহণকৃত কার্যক্রম নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ এবং মনিটরিং করা হচ্ছে।
তিনি বলেন, নিম্নবিত্তসহ অসহায় পরিবারগুলোকে খাদ্য সামগ্রী দেয়া হচ্ছে এবং উপজেলার সব হাট-বাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ন্যায্যমূল্যে ও হ্রাসকৃত মূল্যে বিক্রি করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এতে করে নিম্ন আয়ের পরিবারগুলোসহ ক্রেতাসাধারণ উপকৃত হচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে তিনি জনপ্রতিনিধিসহ উপজেলাবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।
উল্লেখ্য, সারা দেশের মতো হাজীগঞ্জেও নিত্যপ্রয়োজনী পণ্য ও ঔষুধের দোকানপাট ছাড়া সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি-বেসরকারি অফিসিয়াল কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এছাড়া বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন।