গাছতলায় নদী তীরে সরকারি ভূমিতে ভেকু দিয়ে মাটি কাটছে দুর্বৃত্তরা

এস এম সোহেল
চাঁদপুর সদর উপজেলার বাগাদী ইউনিয়নের গাছতলা এলাকায় ডাকাতিয়া নদীর তীরবর্তী সরকারি জমি নষ্ট করে অবৈধভাবে ভেকু দিয়ে প্রায় ২৫ শতাংশ জমির মাটি কাটছেন মোহাম্মদ লিটন নামের স্থানীয় এক ইট ও বালু ব্যবসায়ী। তিনি মায়ের দোয়া এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী।
গত বৃহস্পতিবার পবিত্র লাইলাতুল কদরের রাতে চাঁদপুর-রায়পুর সড়কের নিজ গাছতলা এলাকার মেরিন একাডেমীর পাশের নদীর পাড়ে ভেকু দিয়ে তিনি মাটি কাটেন। গত ৯ মার্চ চাঁদপুর সদর থানা পুলিশের সহযোগিতায় বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ মোতাবেক তাকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদ- করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন চাঁদপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল চৌধুরী।
জানা যায়, চাঁদপুর শহরতলীর নিজ গাছতলা এলাকার চাঁদপুর-রায়পুর ব্রিজের দক্ষিণ পশ্চিম পাশে অবস্থিত মায়ের দোয়া এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ লিটন পাঠান দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে ডাকাতিয়া নদীর তীরবর্তী স্থানে সরকারি খাস জমি কোন প্রকার লিজ না নিয়ে অবৈধভাবে ভোগ দখল করে আসছেন। তিনি প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সরকারিভাবে কোনো প্রকার অনুমোদন না নিয়ে অবৈধভাবে নদীর তীরবর্তী স্থানের সরকারি খাস জমি (ফসলী জমিতে) ভেকু লাগিয়ে মাটি কাটছেন। ওইস্থানে অবৈধভাবে দখল করে রাখা সরকারি খাস জমি একদিনের মধ্যে ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশনা প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। তবে পবিত্র লাইলাতুল কদরের নামাজে মানুষ রাতের অন্ধকারে যখন মগ্ন তখন তিনি অবৈধভাবে ভেকু দিয়ে মাটি কাটেন।
স্থানীয়রা জানান, লিটন সরকারি খাস জমি কোনপ্রকার অনুমোদন না নিয়ে ডাকাতিয়া নদী হতে প্রায় ২৫ শতক জমি অবৈধভাবে ভেকু দিয়ে মাটি কেটে বিক্রি করছেন। সরকারিভাবে তার যদি লিজের অনুমোদন থাকে, তাহলে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তার কিভাবে জরিমানা করা হয়? আবার জরিমানা করার কয়েকদিন বন্ধ থাকার পর পুনরায় লিটন একই স্থানে ভেকু দিয়ে মাটি কাটছেন। এ বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন স্থানীয় এলাকাবাসী।
চাঁদপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. হেলাল চৌধুরী বলেন, বিষয়টি জেনেছি, তা দেখা হচ্ছে।

৩০ এপ্রিল, ২০২২।