চাঁদপুরে ট্রলার ডুবে মাঝি নিখোঁজ

স্টাফ রিপোর্টার
চাঁদপুরের মেঘনা মোহনায় মাস্টার আরাফাত নামের মালবাহী ট্রলার ডুবে মো. দেলোয়ার (৩৮) নামে এক মাঝি নিখোঁজ রয়েছে। মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে মেঘনা মোহনার রণাগোয়াল নামক স্থানে ট্রলারটি মালামাল ও ৪ জনসহ ডুবে যায়। ট্রলারে থাকা ৩ জনকে নৌ-পুলিশ উদ্ধার করলেও সন্ধ্যা পর্যন্ত চেষ্টা চালিয়ে খোঁজ মিলেনি মাঝি দেলোয়ারের।
দেলোয়ার শরীয়তপুর জেলার সখিপুর থানার উত্তর তারাবুনিয়া মদন ঢালী কান্দির আলী আহম্মদ প্রধানিয়ার ছেলে। উদ্ধার হওয়া বাকি ৩ জন হলেন- ট্রলার শ্রমিক শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা থানার এলাকার মিজান সৈয়াল (৪০), মো. জলিল (৪০) ও মো. হারুনুর রশিদ (৫০)।
উদ্ধার হওয়া ট্রলার শ্রমিক মিজান সৈয়াল বলেন, তারা ঢাকা থেকে বিভিন্ন ধরনের খাদ্যদ্রব্য ও মুদি মালামাল নিয়ে চাঁদপুরে আসেন। রাতে শহরের ট্রাক ঘাট এলাকায় অবস্থান করেন। গোসাইরহাটে যাওয়ার উদ্দেশে সকালে ট্রাক ঘাট থেকে ডাকাতিয়া নদী হয়ে মেঘনা মোহনায় আসলে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন তারা। ঘূর্ণি স্রোতের মধ্যে পড়ে মোহনা থেকে ট্রলারটি ডুবতে ডুবতে রণাগোয়াল নামক স্থান পর্যন্ত চলে যায়। স্থানীয়রা সংবাদ দিলে পুলিশ এসে তাদের ৩ জনকে উদ্ধার করে এবং মাঝি দেলোয়ার পানিতে তলিয়ে যায়।
আরেক শ্রমিক জলির জানান, ডুবে যাওয়া ট্রালারে ছিল- নয়ন নামে ব্যবসায়ীর দুই বস্তা পলিথিন, সেলিম নামে ব্যবসায়ীর তৈল সয়াবিন (এক ড্রাম), আরো ৩ ব্যবসায়ীর মাছের খাদ্য ও পলিথিন ১ বস্তা। ট্রলারের মালিক শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা থানার মো. সোবহান মাঝি (৭৫)।
চাঁদপুর নৌ থানার এসআই রেদওয়ান জানান, সংবাদ পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল এলাকা থেকে ৩ জনকে উদ্ধার করি এবং দেলোয়ার নামে মাঝি সন্ধ্যা পর্যন্ত নিখোঁজ রয়েছে। ট্রলারটি পানিতে তলিয়ে যায়। উদ্ধার হওয়া ৩ ট্রলার শ্রমিক এখন থানায় আছে। নিখোঁজ মাঝির পরিবারের লোকদের খবর দেয়া হয়েছে। তারা এখনো চাঁদপুরে এসে পৌঁছায়নি।

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২।