চাঁদপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১৯৬ জনকে অর্থদণ্ড

চাঁদপুরে লকডাউন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ ও পুলিশ সুপার মো. মিলন মাহমুদ।

শাহ্ আলম খান
কঠোর বিধি-নিষেধ (লকডাউন) বাস্তবায়নে চাঁদপুর জেলা সদর ও ৭ উপজেলায় স্বাস্থ্যবিধি না মেনে অযথা রাস্তায় ঘোরাঘুরি, প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়া, জেলার বাইরে থেকে প্রবেশ করা ও সরকারি নির্দেশনা না মানার কারণে দণ্ডবিধি ২৬৯ ধারা মোতাবেক ১৯৬ মামলায় ১৯৬ জনকে ১ লাখ ৪০ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করেছে পৃথক-পৃথক ভ্রাম্যমাণ আদালত।
বুধবার (২৮ জুলাই) রাত সাড়ে নয়টায় এসব তথ্য নিশ্চিত করেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট। মঙ্গলবার বিকাল ৫টা থেকে বুধবার বিকাল ৫টা পর্যন্ত মোট ১৮টি মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়েছে।
এসব ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ ৭ উপজেলার ইউএনও, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটরা।
এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জানান, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক বেগম অঞ্জনা খান মজলিশ স্যারের নির্দেশে জেলা শহরসহ জেলার প্রত্যেকটি উপজেলাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে।
তিনি বলেন, সড়ক পরিবহন আইন লঙ্ঘন, স্বাস্থ্যবিধি ও মাস্ক না পরার অপরাধে চাঁদপুর জেলার গত ২৪ ঘণ্টায় ১শ’ ৯৬ মামলায় ১শ’ ৯৬ জন ব্যক্তিকে বিভিন্ন অংকে ১ লাখ ৪০ হাজার ২ শ’ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন অজুহাতে ঘর থেকে বের হয়ে রাস্তায় ঘোরাঘুরি না করার জন্য সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে।
চাঁদপুরে কঠোর লকডাউনের ৬ষ্ঠ দিনে সকাল থেকেই থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। লকডাউন বাস্তবায়নে বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করেও চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের তৎপরতা ছিল অব্যাহত।
বুধবার সকাল থেকে শপথ চত্বর, কালী বাড়ীর মোড়, পালবাজার মোড়, পুরাতন বাসস্ট্যান্ড, ওয়ারলেস মোড়, বাবুরহাট বাজার এলাকায় চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন।
এইদিন সকালে জেলা শহরের পরিস্থিতি পরিদর্শন করেছেন চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বেগম অঞ্জনা খান মজলিশ। এসময় তিনি সার্বিক পরিস্থিতির খবরা-খবর নেন।
সরজমিনে বিকালে শপথ চত্বর, ইলিশ চত্বর, পুরাতন বাস স্ট্যান্ড, ওয়ারলেস মোড়, বাবুরহাট মতলব রোড, পালবাজার গেট, পুরাণবাজার ও মহামায়া এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, যারাই অযথা বাড়ি বের থেকে বের হচ্ছেন এবং সরকারি নিষেধাজ্ঞা মানছেন না তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা প্রদান করা হচ্ছে।
ভ্রাম্যমাণ আদালতে সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি ও আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্যবৃন্দ সার্বিক সহযোগিতা করেন। একই সময় সাধারণ মানুষকে সচেতন করার জন্য মাইকিং করা হয়।
এদিকে, চাঁদপুরে করোনা পরিস্থিতি আশঙ্কাজনক হওয়ার কারণে বিকালে সরেজমিন লকডাউন পরিস্থিতি পরিদর্শনের নামেন পুলিশ সুপার মো. মিলন মাহমুদ।

২৮ জুলাই, ২০২১।