চাঁদপুর জেলা বিএনপিতে থাকতে চায় সুবিধাবাদীরা

রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রামে থাকেন না তারা

ইলশেপাড় রিপোর্ট
চাঁদপুর জেলা বিএনপির নেতৃত্বে থাকতে চায় সুবিধাভোগী বেশ কিছু নেতা। যদিও এমনসব নেতাদের বিরুদ্ধে মাঠ পর্যায়ে নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের ক্ষোভ আছে কম বেশি। তৃণমূল পর্যায়ে অভিযোগ গত এক যুগ ধরে বিএনপি ক্ষমতার বাইরে রয়েছে। এতে রাজনীতির মাঠে সরকার বিরোধী অবস্থান নিতে গিয়ে দলটির সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা মামলা-হামলাসহ প্রতিহিংসার মুখে পড়তে হয়েছে।
মাঠ পর্যায়ে তার প্রভাব লক্ষ্যনীয় হলেও সাম্প্রতিক সময়ে নেতাকর্মীরা দলের চেয়ারপার্সনের কারামুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে রাজপথের সক্রিয় জানান দিচ্ছে। এমন সুযোগকে কাজে লাগিয়ে দলছুট ও সরকারদলীয় সুবিধাভোগী কোন কোন নেতা বিএনপির রাজনীতিতে ফিরতে নানা তৎপরতা শুরু করেছে বলে অভিযোগ উঠছে।
গত ১২ জানুয়ারি চাঁদপুর জেলা বিএনপির আয়োজনে চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে গণসমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়। ঐ সমাবেশকে কেন্দ্র করে এক যুগেরও বেশি সময় সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে নিষ্ক্রিয় ও মামলা-হামলায় না থাকা কোন কোন নিষ্ক্রিয় ও সুযোগ-সন্ধানীদের ব্যানার-পোস্টারের দেখা মিলে। এ নিয়ে দলটির ত্যাগী কর্মী ও সমর্থকদের মাঝে মিশ্র ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।
নেতাকর্মীদের অভিযোগ- সাবেক এক স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা নিজেকে জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক দাবি করে ব্যানার-পোস্টারে জানান দিলেও গত ১২ জানুয়ারি জেলা বিএনপি আয়োজিত চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে গণসমাবেশে অংশ নিতে দেখা যায়নি।
এমন পরিস্থিতিতে দলটির নেতাকর্মীরা এমন সুযোগ-সন্ধানীদের কাছ থেকে দূরে থাকা দরকার বলে দাবি করছেন অনেকেই। যাতে বর্তমানে সংগঠনিকভাবে সক্রিয় ও নেতাকর্মীবান্ধব নেতৃবৃন্দ কোনভাবে বিভ্রান্তির শিকার না হন। নাহলে অনুপ্রবেশকারীদের কারণে দলে অভ্যন্তরীণ বিভেদ দৃশ্যমান হয়ে উঠবে। এসব ‘দুধের মাছি’রা শুধু পদ অলঙ্কৃত বা সুসময়ে নিজেদের আখের গোছাতেই ব্যস্ত থাকবে। তৃণমূলের নেতাকর্মীদের বিপদে বা তাদের কল্যাণে ঐসব সুবিধাবাদী নেতাদের টিকিটিও খুঁজে পাওয়া যাবে না।
এদিকে জেলা বিএনপির একটি সূত্র জানিয়েছে, চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে গণসমাবেশ সফলে সহযোগিতা করতে জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ করলে কার্যত তাদের কোন কর্মকান্ডে দেখা মিলেনি। তারা শুধু ব্যানার পোস্টারে নিজেদের সীমাবদ্ধ রেখেছিল।
উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১৩ ডিসেম্বর চাঁদপুরে ৭১ সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রিয় বিএনপি। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে জেলা বিএনপির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলে অজ্ঞাত কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়। আর ঐ সম্মেলনকে কেন্দ্র করেই মূলত নিষ্ক্রিয় ও দলছুট কোন কোন নেতাকে দলে ফিরতে নানা কসরত করতে দেখা গেছে।

২০ জানুয়ারি, ২০২২।