চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটার‌্যাক্ট ক্লাবের ৩০ বছর পূর্তি ও অভিষেক অনুষ্ঠান

 

অতীত ইতিহাসের অভিজ্ঞতাই আমাদের সমৃদ্ধ করে
………….সিনিয়র সচিব মাকসুদুর রহমান পাটওয়ারী

স্টাফ রিপোর্টার
আমাদের জীবনে অতীত ইতিহাসের অভিজ্ঞতাই আমাদের সামনের দিনগুলোকে সমৃদ্ধ করে বলে মন্তব্য করেন সিনিয়র সচিব মাকসুদুর রহমান পাটওয়ারী। তিনি গত শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টায় শহরের এলিট চাইনিজ রেস্তোরাঁয় চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটার‌্যাক্ট ক্লাবের ৩০ বছর পূর্তি ও অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।
এ সময় সিনিয়র সচিব বলেন, বর্তমানে আমাদের এগিয়ে যাওয়ার পালা। তেমনিভাবে চাঁদপুর এগিয়ে যাবে। চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটার‌্যাক্ট ক্লাবও এগিয়ে যাবে। আর ক্লাবের সব ভালো কাজে আমরা থাকবো।
ক্লাবের সভাপতি রো. জয় ঘোষ ও অনুষ্ঠান চেয়ারম্যান রো. পিপি হাবিবুর রহমান টিটুর পরিচালনায় সরকারের এই সিনিয়র সচিব আরো বলেন, আজ আমি দেশের সিনিয়র সচিব। এ পর্যায়ে আসতে ৩৩ বছর দেশের জন্য, সমাজের জন্য ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের জন্য কাজ করতে হয়েছে। রোটারী ক্লাব আমাদের শৃঙ্খলাবোধ শিখায়। তেমনি ‘৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে জাতির পিতা আমাদের নেতৃত্ব দিয়ে শৃঙ্খলাবোধ শিখিয়েছেন।
সচিব মাকসুদ পাটওয়ারী আরো বলেন, কোভিড-১৯ আমাদের হতাশার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। কিন্তু আমরা হতাশাকে জয় করবো। কারণ, হতাশা থেকে মাদকের নেশায় আমাদের প্রজন্ম জড়িয়ে পরছে। রোটারী এই হতাশাকে জয় করে নিজে বাঁচবে এবং অন্যকে বাঁচাবে। যাতে আমারা রোটারীর মাধ্যমে বেস্ট ফ্রেন্ড হয়ে সমাজের কল্যাণে কাজ করতে পারি।
তিনি নিজের উপলব্ধি থেকে বলেন, আমি সব সময় লক্ষ্য করি কবরের স্থান ও হাসপাতালের দিকে। কারণ এই কবরে শুয়ে আজে আমার চেয়ে অনেক জ্ঞানী-গুণী ব্যক্তি। তেমনি হাসপাতালের বেডে শুয়ে বেঁচে থাকার আকুতি কত মানুষের। যারা সবাই আমাদের চেয়েও জ্ঞানী। অতএব কোন অহংকার নয়। আমাদের কাজ আমাদের করতে হবে। এজন্য রোটারী ক্লাব শহরের রাস্তা (সড়ক) ও হাসপাতালের বাথরুম পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার মতো কাজ করলে সমাজের উপকার হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও গীতা পাঠের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়। সম্মিলিতভাবে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন শেষে রোটার‌্যাক্ট প্রত্যয় পাঠ করা হয়। ফুলেল শুভেচ্ছা শেষে অতিথিবৃন্দ ‘উন্মেষ’ স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করেন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব হাবিবুর রহমান। সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটারী ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও কক্সবাজারের গ্যালাক্সি রিসোর্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রোটা. মো. মনিরুল ইসলাম।
অনুষ্ঠানের চেয়ারম্যান রো. হাবিবুর রহমান টিটুর অভিব্যক্তি পর বিদায়ী সচিব রো. শামিম আহম্মেদ খান ও বিদায়ী সভাপতি রো. রাজীব দাস বক্তব্য শেষে কলার হস্তান্তরের মাধ্যমে নবাগত সভাপতি রো. জয় ঘোষ অনুভূতি প্রকাশ করেন।
বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটারী ক্লাবের সভাপতি রোটা. ডা. তানভির আহম্মেদ, চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটারী ক্লাবের সাবেক সভাপতি রো. জিএস মুনছুর আহম্মেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটার‌্যাক্ট ক্লাবের প্রাক্তন রোটার‌্যাক্টরদের সংবর্ধনা দেয়া হয়। চাঁদপুর সেন্ট্রাল রোটার‌্যাক্ট ক্লাবের ১৯৯৪-৯৫ সালের সভাপতি ফখরুদ্দিন আহমেদ রিয়াজ, ১৯৯৫-৯৬ সালের সভাপতি ও দৈনিক ইল্শেপাড়ের প্রধান সম্পাদক রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমন, ১৯৯৭-৯৯ সালের সভাপতি মেহেদী মাসুদ, ১৯৯৯-২০০০ সালের সভাপতি আবু সাঈদ কাওসার, ২০০১-০২ সালের সভাপতি শাহজাদী সাবিহা আক্তার অনু, ২০০২-০৩ ও ২০০৪-০৫ সালের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন, ২০০৩-০৪ সালের সভাপতি আলমগীর হোসেন বাবু, ২০০৯-১০ সালের সভাপতি মোস্তফা কামাল বিপু, ২০১৩-১৪ সালের সভাপতি ফিরোজ হোসেন, ২০১৫-১৬ সালের সভাপতি প্রবাস রঞ্জন পোদ্দার, ২০০৪-০৫ সালের সচিব মোস্তফা কামাল, ক্লাবের সাবেক সদস্য মো. আনিছুজ্জামান ও নাহিদ আক্তার সাথীকে শুভেচ্ছা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।
১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১।