বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকীতে পদক বিতরণ

বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব একজন মহিয়সী নারী ছিলেন
……….জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

সজীব খান
জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান বলেছেন, বেগম শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব পর্দার অন্তরালে থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সব সময় শক্তি, সাহস ও অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। প্রতিটি কাজে উৎসাহ দিয়েছেন। যার কারণেই বাংলাদেশ স্বাধীন ও সার্র্বভৌম দেশ হয়েছে। বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব একজন মহিয়সী নারী ছিলেন। দেশের জন্য তার অবদানও কম নয়।
সোমবার (৮ আগস্ট) জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে বঙ্গমাতা বেগম শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালী শেষে জেলা প্রশাসকের আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনে বিজয়লক্ষ্মী নারী হিসেবে শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব এসেছেন। বাংলাদেশের অর্জনের সংগ্রামে কেবল বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী হিসেবে নয়, একজন নীরব দক্ষ, সাহসী ও দেশপ্রমিক সংগঠক হিসেবে বেগম মুজিবের ভূমিকা অপরিসীম। শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্ম ১৯৩০ সালের ৮ আগস্ট গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায়।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. মিলন মাহমুুদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ইমতিয়াজ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবুু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, চাঁদপুর পৌর মেয়র অ্যাড. জিল্লুর রহমান জুয়েল, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত ডা. সৈয়দা বদরুন নাহার, পুরান বাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার, প্রশাসনের বিভিন্ন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ, সমাজসেবকসহ বিভিন্ন স্তরের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

০৯ আগস্ট, ২০২২।