হাজীগঞ্জে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সচেতনতায় পুলিশি তৎপরতা

স্বাস্থ্যবিধি না মানলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা: সোহেল মাহমুদ

মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে হাজীগঞ্জ বাজারের কাপড়ের দোকানগুলোতে উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এতে বেশিরভাগ দোকানেই ক্রেতা-বিক্রেতারা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। কিছু দোকানে ব্যবসায়ী, দোকান কর্মচারী ও ক্রেতাদের মুখে মাস্ক থাকলেও তা থুতনির নিচে পরতে দেখা গেছে। তবে কাউকেই শারীরিক দূরত্ব মানতে দেখা যায়নি। স্বাস্থ্যবিধি নয়, সবাই ক্রয়-বিক্রয়কেই প্রাধান্য দিতে দেখা গেছে।
এসব ক্রেতা-বিক্রেতাদের সচেতন করতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হাজীগঞ্জ সার্কেল) মো. সোহেল মাহমুদের নেতৃত্বে ব্যাপক সচেতনমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করছে হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ। সোমবার (৩ মে) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত হাজীগঞ্জ বাজারে প্রতিটি মার্কেট ও কাপড়ের দোকানসহ সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের দ্বারে-দ্বারে গিয়ে হ্যান্ড মাইকিংয়ের মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি মানার তাগিদ দেয়া হয়েছে। এ সময় বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করা হয়।
থানার ওসি মোহাম্মদ হারুনুর রশিদের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় প্রচরাভিযানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোহেল মাহমুদ বলেন, করোনা ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধে সরকার শর্ত-সাপেক্ষে এবং যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান-পাট ও শপিংমল খোলার অনুমতি দিয়েছে। আশা করি বিক্রেতারা সেসব বিধি-নিষেধ মেনে তাদের ব্যবসায়ীক কার্যক্রম পরিচালনা করবেন এবং ক্রেতারাও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন।
সবার সার্বিক সহযোগিতা কামনা করে তিনি বলেন, আপনার আমার দায়িত্বশীল আচরণ ও চলাফেরায় করোনা সংক্রমন ঠেকানো সম্ভব। নতুবা পরিস্থিতির অবনতি ঘটবে। যারা সরকারি বিধি-নিষেধ ও শর্তাবলী মেনে না চলবেন, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান। এ সময় তিনি বেশ কয়েকটি কাপড়ের দোকানীকে সর্তক করেন এবং তাদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা প্রদান করেন।
পুলিশি এই প্রচারিভাযানে হাজীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল, সেকেন্ড অফিসার এসআই সৈয়দ মো. মোশারফ হোসেন, এসআই জয়নাল আবেদীন-২, মো. ইউনুস মিয়া, মো. রবিউল ইসলাম, মো. হারুন অর রশিদ, মো. রুবেল, এএসআই নাজিম উদ্দিনসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

৪ মে, ২০২১।