আজ ৯ ইউপির নির্বাচনে প্রার্থীদের ভাগ্য পরীক্ষা

নিরাপত্তার চাদরে চাঁদপুর সদর উপজেলা

ইলশেপাড় রিপোর্ট
আজ বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। দেশের দ্বিতীয় ধাপে ৮শ’ ৪৮ ইউনিয়ন পরিষদের সাথে একযোগে চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদের একযোগে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ। তবে গত ক’দিন আগে হাইকোর্টে একটি রিট আবেদনের পর ১৩নং হানারচর ইউপির নির্বাচন স্থগিত করে উচ্চ আদালত।
এদিকে নির্বাচনে সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য করে তুলতে ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করার জন্য। এজন্য ব্যপক নিরাপত্তার ব্যবস্থাগ্রহণ করা হয়েছে। এবারের নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের পাশাপাশি ৩ প্লাটুন র‌্যাব, ৩ প্লাটুন বিজিবি, ২ প্লাটুন কোস্টগার্ড সদস্য সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে থাকবে। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে ৫জন পোশাকধারী পুলিশ ও ১৭জন আনসার সদস্য স্থায়ীভাবে দায়িত্ব পালন করবে।
এই উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে মোট ভোট কেন্দ্র ১শ’ ৫টি ও ভোট কক্ষ ৫শ’ ৭১টি। অস্থায়ী ভোট কক্ষ রাখা হয়েছে ১শ’ ১৮টি। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩৪ জন, সাধারণ সদস্য পদে ২শ’ ৯৮ জন ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৭৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। নির্বাচনের পূর্বে ৭নং তরপুরচন্ডী ও ৫নং রামপুর ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করছে।
এই ৯টি ইউনিয়নে মোট ভোটার ১ লাখ ৯৩ হাজার ৯শ’ ৫৮জন। তার মাঝে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ১ হাজার ২শ’ ৭০ জন এবং নারী ভোটার ৯২ হাজার ৬শ’ ৮৮ জন বলে নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে।
চাঁদপুর জেলা নির্বাচন অফিসার তোফায়েল হোসেন ইল্শেপাড়কে জানান, সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন পরিচালনা করার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে ব্যালট পেপার, ব্যালট বক্সসহ নির্বাচনী সব সরঞ্জামাদি পৌঁছানো হয়েছে। নির্বাচনে ১শ’ ৫জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৫শ’ ৭১ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও ১ হাজার ১শ’ ৪২ জন পুলিং অফিসার নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। তাদের প্রত্যেককেই নির্বাচনী প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছিলো।
ইউপি নির্বাচনকে অবাধ ও সুষ্ঠু করতে গত ২ নভেম্বর চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের আয়োজনে সব চেয়ারম্যান, মেম্বার এবং সংরক্ষিত আসনের নারী মেম্বার প্রার্থীদের নিয়ে আচরণবিধি শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়ে ছিলো। সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ প্রার্থীদের অবগত করে বলেন, একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করার জন্যে সব প্রস্তুতি রয়েছে। নির্বাচন যেন সুষ্ঠু হয় সেজন্য প্রশাসন পুরোপুরি প্রস্তুত আছে।
জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ জানান, সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানে সরকারের নির্দেশনা রয়েছে। আমরা চাপমুক্তভাবেই সুষ্ঠু নির্বাচন করতে চাই। নির্বাচনে পর্যাপ্ত আনসার, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে আমার কাজ হলো নির্বাচনকে স্বচ্ছ করা। আমি কারো নাম, দল ও প্রতীকও দেখবো না। আচরণবিধি লঙ্ঘন হলেই কঠোর থেকে কঠোর হবো।
জেলা নির্বাচন অফিস জানায়, বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে ২৬ হাজার ২শ’ ৫৭ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ভোটার ১৩ হাজার ৬শ’ ৫ জন এবং নারী ভোটার ১২ হাজার ৬শ’ ৫২ জন।
আশিকাটি ইউনিয়নে ২০ হাজার ৮শ’ ১১ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ভোটার ১০ হাজার ৬শ’ ৫১ জন ও নারী ভোটার ১০ হাজার ১শ’ ৬০ জন।
শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নে ২১ হাজার ৬শ’ ৩৯ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ভোটার ১১ হাজার ২৬ জন ও নারী ভোটার ১০ হাজার ৬শ’ ১৩ জন ।
রামুপুর ইউনিয়নে ১৬ হাজার ৯শ’ ৭৬ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ভোটার ৮ হাজার ৭শ’ ১৩ জন ও নারী ভোটার ৮ হাজার ২শ’ ৬৩ জন।
মৈশাদী ইউনিয়নে ১৩ হাজার ২শ’ ৮২ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ৬ হাজার ৭শ’ ৯৭ জন ও নারী ভোটার ৬ হাজার ৪শ’ ৮৯ জন।
তরপুরচন্ডী ইউনিয়নে ১০ হাজার ৩শ’ ৫৫ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ভোটার ৫ হাজার ২শ’ ৬৮ জন ও নারী ভোটার ৫ হাজার ৮৭ জন।
বাগাদী ইউনিয়নে ২৬ হাজার ৬৮ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ভোটার ১৩ হাজার ৭শ’ ৯০ জন ও নারী ভোটার ১২ হাজার ২শ’ ৭৮ জন।
বালিয়া ইউনিয়নে ২৬ হাজার ৫শ’ ৫২ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ১৪ হাজার ১শ’ ৭ জন ও নারী ১২ হাজার ৪শ’ ৪৫ জন ভোটার।
চান্দ্রা ইউনিয়নে ২৪ হাজার ৬শ’ ৫২ জন ভোটারের মাঝে পুরুষ ১৩ হাজার ২শ’ ১৬ জন এবং নারী ১১ হাজার ৪শ’ ৩৬ জন ভোটার।

১১ নভেম্বর, ২০২১।