কুমিল্লা-চাঁদপুর সড়কের হাজীগঞ্জে দীর্ঘ যানজট, গণপরিবহন চলাচলে ভোগান্তি

হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন এনায়েতপুর এলাকায় ট্রাক থেকে বিদ্যুতের পিলার (খুঁটি) আনলোড করায় কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলাধীন সীমান্তবর্তী এলাকায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
ট্রাক থেকে বিদ্যুতের খুঁটি আনলোড করায় কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কে গণপরিবহন চলাচলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে সহস্রাধিক পরিবহন শ্রমিকসহ যাত্রীদের। বুধবার (১৫ জুলাই) দুপুরে কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলাধীন সীমান্তবর্তী এলাকায় প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ঘণ্টাব্যাপী থাকা এই যানজটের নিরসন হয়।
সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা গেছে, হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন এনায়েতপুর বাজার এলাকায় ট্রাক থেকে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি আনলোডজনিত কারণে বুধবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন এনায়েতপুর বাজার থেকে পশ্চিমে শৈলখালী ব্রিজ পর্যন্ত এবং এনায়েতপুর বাজার থেকে পূর্বদিকে শাহরাস্তি উপজেলাধীন ওয়ারুক স্টেশন পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটারব্যাপী যানজটের সৃষ্টি হয়।
এতে করে ছোট-বড় সহস্রাধিক যানবাহনসহ কয়েকটি এ্যাম্বুলেন্স আটকা পড়ে। যার ফলে সহস্রাধিক পরিবহন শ্রমিকসহ যাত্রীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। দেখা গেছে, সড়কের তুলনায় বিদ্যুতের খুঁটি বহনকারী ট্রাক অন্যান্য পরিবহন থেকে সাইজে প্রায় দ্বিগুণ এবং লোডজনিত কারণে ধীরগতি ও সাবধানতার সাথে পার্কিং করতে হয়।
এছাড়া খুঁটি পরিবহনকৃত আরো কয়েকটি গাড়ি সড়কের অর্ধেক স্থান দখলপূর্বক অবস্থান এবং ছোট পরিবহনগুলো (সিএনজি চালিত স্কুটার ও অটোরিক্সা) বেপরোয়া চলাচল ও শৃঙ্খলাবোধের অভাবে সড়কে ঘণ্টাব্যাপী প্রায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। যার ফলে পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। পরে স্থানীয় কিছু যুবকের চেষ্টায় যানজটের নিরসন হয়।
এ সময় স্থানীয় একজন সংবাদকর্মী হাজীগঞ্জের দায়িত্বে থাকা ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) তালুকদার আল মামুনকে যানজটের বিষয়টি জানান। তিনি বিষয়টি চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর জেনারেল ম্যানেজারকে (জিএম) জানাবেন বলে জানান।
লিটন মিয়া নামের একজন পরিবহন শ্রমিকের (চালক) সাথে কথা হলে তিনি জানান, এই স্থানে কিছুদিন পর পর ট্রাক থেকে বিদ্যুতের খুঁটি আনলোড করে। এতে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। আর আমাদের ভোগান্তি পোহাতে হয়।
মাসুদ আমিন নামের একজন যাত্রীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, সড়কের অর্ধেক পর্যন্ত দখল করে খুঁটিবাহী ট্রাকগুলো অবস্থান করে এবং খুঁটি যেখানে নামবে, সেই স্থানে একটি ট্রাক পার্কিং করতে অনেক সময় লাগে। তাই যানজটের সৃষ্টি হয়। আর এই যানজট থেকে মুক্তি পেতে তাদের ঘণ্টাব্যাপী অপেক্ষা করতে হয় বলে তিনি জানান।
এদিকে দীর্ঘ এই যানযট থেকে মুক্তি পেতে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কর্তৃপক্ষ ও ট্রাফিক পুলিশের সমন্বয়ের মাধ্যমে ট্রাক থেকে খুঁটিগুলো আনলোড করার অনুরোধ জানান পরিবহন শ্রমিকরা। যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন তারা।

১৫ জুলাই, ২০২০।