চাঁদপুরে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ

শেখ হাসিনার সীমাহীন অপরাধের বিচার করা হবে
………….আব্দুল আউয়াল মিন্টু

এস এম সোহেল
বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা ড. খন্দকার মোশারফ হোসেনের বাসভবনসহ বিএনপির নেতাকর্মীদের উপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলা ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে চাঁদপুর জেলা বিএনপি। শনিবার (১৪ মে) বিকেলে জেলা বিএনপি কার্যালয় প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু।
তিনি তার বক্তব্যে বলেন, বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা ড. খন্দকার মোশারফ হোসেনের বাসভবন হামলা করা মানে, পুরো জাতির উপর হামলা করা। আমরা এ প্রতিবাদ জানাই। শেখ হাসিনা ১৫৬ আসনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন করে বলেছিলেন, এটি নিয়ম রক্ষার নির্বাচন। তিনি বলেছিলেন ২ মাস পরে পুনরায় নির্বাচন দিবে। কিন্তু তিনি তা না করে তালবাহানা করে অবৈধ ক্ষমতায় বসে আছেন। অথচ আমাদের নেত্রী কথা দিয়ে কথা রাখেন। তার প্রমাণ হচ্ছে ‘৯৬ নির্বাচনের ৩ মাস পরে নির্বাচন দিয়েছিলেন।
তিনি এ সরকারের অপরাধের চিত্র তুলে ধরে বলেন, এ সরকার প্রথম অপরাধ হচ্ছে ভোট চুরি করে ক্ষমতায় বসে থাকা। দ্বিতীয় অপরাধ হচ্ছে অবৈধ ক্ষমতায় এসে চাঁদপুরে ২৩ জন নেতা-কর্মীকে হত্যা করেছেন। সারাদেশে ৫ লাখ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে হয়রানী করছেন। শেখ হাসিনা বলেন আমি কি পেছন দিয়ে ক্ষমতায় এসেছি নাকি। আমরা বলি আপনি জনগণের জানালা ভেঙ্গে এসেছেন। আপনি আমাদের দেশকে বিদেশী তাবেদারী দেশে পরিণত করেছেন। আপনি বিচার বিভাগকে আয়ত্বে নিয়ে, বিচারহীন সমাজে সৃষ্টি করেছেন। মিথ্যা তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করছেন। সংসদ ও বিচার বিভাগকে ধ্বংস করে দিয়েছেন। শেখ হাসিনার অপরাধ সীমাহীন, আমরা তার বিচার চাই এবং করবো।
বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন চাঁদপুর জেলা বিএনপির সভাপতি শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, আগে আমাদের মা-বোনেরা পিঁয়াজ কাটতে গেলে চোখে পানি এসে যেতো। আর এখন পিঁয়াজ কিনতে গিয়ে চোখে পানি এসে যায়। শেখ হাসিনা দিনের ভোট রাতে কেটে ফেলেছে। তাহলে আমরা বলতে পারি এ সরকার ভোট চোর। এ সরকারের অধীনে আর কোন নির্বাচনে যাবো না। আপনারা পেছনের খাল দিয়ে পালানোর পথও খুঁজে পাবেন না। অবৈধ সরকারের দুর্নীতিবাজদের জেলখানায়ও আশ্রয় দিবে না। আগামিতে চাঁদপুরের ৫টি আসনকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও দেশনায়ক তারেক রহমানকে উপহার দেওয়া হবে।
চাঁদপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সলিম উল্যাহ সেলিম, সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক খলিলুর রহমান গাজী ও সাবেক যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড. জহির উদ্দিন বাবরের যৌথ পরিচারনায় বক্তব্য রাখেন এনডিপির চেয়ারম্যান আলহাজ ক্বারী মো. আবু তাহের বেপারী, বিএনপি নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী খায়রুজ্জামান সিপন, ফরিদগঞ্জ আসনের-২ বারের এমপি প্রার্থী আলহাজ এম এ হান্নান, চাঁদপুর জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মাহাবুব আনোয়ার বাবলু, চাঁদপুর জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জিসম উদ্দিন খান বাবুল, জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সেলিমুছ সালাম, চাঁদপুর সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জাহাঙ্গীর হোসেন খান, চাঁদপুর জেলা মহিলা দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাড. কোহিনুর রশীদ, চাঁদপুর জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন, জেলা যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মানিকুর রহমান মানিক, চাঁদপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ইমান হেসেন গাজী প্রমুখ।
সমাবেশের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন জেলা ওলামা দলের সভাপতি মাও. জসিম উদ্দিন পাটওয়ারী।

১৫ মে, ২০২২।