ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে নিহত সেনা সদস্যের মতলব উত্তরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

মতলব উত্তর ব্যুরো
নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে নিহত তরুণ সেনা সদস্য শাহিন আলমকে রোববার (১৬ জানুয়ারি) মতলব উত্তরের মানিকেরকান্দি পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।
পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রোববার বেলা ১২টায় সেনাবাহিনীর একটি হেলিকপ্টার নিহত সেনা সদস্য শাহীন আলমের লাশ নিয়ে মতলব উত্তর উপজেলা কমপ্লেক্স মাঠে অবতরণ করে। পরে লাশ নিয়ে যায় ইমামপুর পল্লীমঙ্গল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে। সেখানে সেনা সদস্যরা গার্ড অব অনার শেষে বেলা সাড়ে ১২টায় জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১টায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।
নিহত সেনা সদস্য শাহিন আলম মতলব উত্তরের মানিকের কান্দি গ্রামের আইয়ুব আলীর ছেলে। ৫ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে শাহিন ছিল ৬ষ্ঠ। ২০১৯ সালের ৩০ ডিসেম্বর সেনাবাহিনীতে সৈনিক পদে যোগদান করে সে।
পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানান, শাহিন বরিশালে সেনাবাহিনীর সৈনিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ৭ দিনের ছুটি নিয়ে বাড়িতে যাওয়ার পথে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন। ছিনতাইকারীরা তাকে ছুরিকাঘাত করে। তাকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকার সিএমএইচ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থা মারা যান।
নিহত সেনা সদস্য শাহীন আলমের বড় ভাই সাইফুল ইসলাম জানান, শনিবার ভোর সাড়ে ৩টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মাদানীনগর এলাকায় আল আমিন গার্মেন্টসের সামনে ঘটনাটি ঘটে। সে বরিশালে সেনাবাহিনীতে সৈনিক হিসেবে কর্মরত। ৭ দিনের ছুটি নিয়ে বাড়ি আসার পথে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন। ছিনতাইকারীরা ছুরিকাঘাত করার খবর পেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় প্রো-অ্যাকটিভ হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় ঢাকার সিএমএইচ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থা তিনি মারা যান।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মো. মশিউর রহমান বলেন, নির্বাচনী কাজে ব্যস্ত ছিলাম। এ সুযোগে ঘটনাটি ঘটেছে। ছিনতাইকারীদের চিহ্নিত করে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন।

১৭ জানুয়ারি, ২০২২।