পাসপোর্ট অফিস সহকারী আমিনুলকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার
চাঁদপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে গত মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাতে পাসপোর্ট অফিসের অফিস সহকারী আমিনুল ইসলাম ও মহসীন নামের এক দালালকে আটক করা হয়। পরদিন রাতে পাসপোর্ট অফিসের ক্যাশিয়ারের তদবিরে অফিস সহকারী আমিনুল ইসলামকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার পাসপোর্ট অফিস এলাকায় গুঞ্জন শুনা যায়।
গত বৃহস্পতিবার চাঁদপুর মডেল থানায় গেলে আটক দালাল মহসীন জানান, গত মঙ্গলবার রাতে সে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে যান পুলিশের এক কর্মকর্তার কাছে। তার আনাগোনা দেখে পুলিশ সুপার কার্যালয়ের এক কর্মকর্তার সন্দেহ হয়। পরে দালাল মহসীনকে ঐ কর্মকর্তা জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে বলে, পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক কর্মকর্তার কাছে আসে পাসপোর্টের ভেরিফিকেশনের টাকা দেওয়ার জন্য। পরে দালাল মহসীনকে আটক করা হয়। মহসিনের দেওয়া তথ্যমতে চাঁদপুর পাসপোর্ট অফিসের অফিস সহকারী আমিনুল ইসলামকে আটক করে ডিবি অফিসে নিয়ে আসে। আমিনুল সরকারি এলআর ফান্ডের নামে চাঁদপুর পাসপোর্ট অফিসে টাকা সংগ্রহ করে থাকেন। আমিনুলকে আটকের পর ঐ রাতে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে যান পাসপোর্ট অফিসের ক্যাশিয়ার ফারুক। ঐ রাতে আমিনুল ইসলামকে ছাড়িয়ে নিতে ব্যর্থ হন ফারুক। পরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে ডিআইজি আসার কারণে আমিনুলকে দিনে আর ছাড়া হয়নি। রাতে আমিনুলকে ছেড়ে দেওয়া হয়। আমিনুলের সাথে আটক দালাল মহসীনকে বুধবার রাতে রাখতে চাঁদপুর মডেল থানায় পাঠানো হয়। গত বৃহস্পতিবার চাঁদপুর মডেল থানায় গিয়ে দেখা যায় আসামি এন্ট্রি খাতায় শুধু দালাল মহসীনের নাম রয়েছে, আমিনুলের নাম নেই। থানার ২য় তলায় লকআপের কাছে গিয়ে দালাল মহসীনের সাথে কথা হলে সে জানায়, বুধবার রাতে চাঁদপুর পাসপোর্ট অফিসের ক্যাশিয়ার ফারুক এসে অফিস সহকারী আমিনুল ইসলামকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।
এ বিষয়ে ডিবি পুলিশের অফিসার ইনচার্জের কাছে পাসপোর্ট অফিসের অফিস সহকারী আমিনুল ইসলামের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দালাল মহসীনকে আটক করা হয়েছে। পাসপোর্ট অফিসের অফিস সহকারী আমিনুল ইসলাম নামের কাউকে আটক করা হয়নি।

০৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২২।