হাজীগঞ্জ পৌরসভায় জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা

ব্যক্তি স্বার্থে আ.লীগের একটি অংশ ষড়যন্ত্রে লিপ্ত
….মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি

মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
১৫ আগস্টে একদিনের জন্য আমরা শোক দিবস পালন করে থাকি। এরপর সবকিছু ভুলে যাই। এমনটি করলে হবে না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে অন্তরে ধারণ করে এগিয়ে যেতে হবে। আর সতর্ক থাকতে হবে তাদের বিষয়ে, যারা দলের মধ্যে ঘাপটি মেরে বসে আছে। কারণ, স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি আন্তর্জাতিক মহলের সাথে আঁতাত করে দলের (আওয়ামী লীগ) একটি অংশের সাথে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। যারা ব্যক্তিস্বার্থে রাজনীতি করে।
কথাগুলো বলেছেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার, চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম। গত সোমবার সকালে হাজীগঞ্জ পৌরসভা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত, মিলাদ দোয়া ও আলোচনা সভায় একথা বলেন।
এসময় তিনি আরো বলেন, ১৯৭৫ সালেও কিছু লোক আওয়ামী লীগের মধ্যে ঘাপটি মেরে বসেছিল। তাদের সহযোগিতায় দেশী ও বিদেশী ষড়যন্ত্রের সাথে মিলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সদস্যসহ অন্যদের নির্মমভাবে হত্যা করেছে। তারপর ৭৫ পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা একটি দূর্বিষহ সময় পার করছে। যার প্রায় ২২ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে।
মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম বলেন, আওয়ামী লীগে বিভক্তি সৃষ্টি করার জন্য আওয়ামী লীগের ভেতরে কিছু লোক বসে আছে। তারা আওয়ামী লীগের ক্ষতি করার চেষ্টা করছে। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, দলীয় মন্ত্রী ও এমপিদের বিরুদ্ধে কুৎসা রটাচ্ছে। মূলতঃ তারা অন্য দলের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে। তারা দল থেকে নিজেরা ফায়দা লুটছে। নতুন প্রন্মকে তাদের দিক থেকে সাবধান থাকতে হবে।
এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতেই তিনি পৌরসভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর পৌর মেয়র আ.স.ম মাহবুব-উল আলম লিপনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় দোয়া ও মোনাজাতে বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টে শাহাদাত বরণকারী সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদের পেশ ইমাম ও খতিব মুফতি আব্দুর রউফ।
পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ সৈয়দ আহম্মদ খসরুর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ রোটা. আহসান হাবিব অরুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. সেলিম, সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী জসিম উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুল হাদী, মানিক হোসেন প্রধানীয়া, ইউসুফ প্রধানীয়া সুমন, মজিবুর রহমান মজিব, মোস্তফা কামাল মজুমদার, কাজী নুরুর রহমান বেলাল, গিয়াস উদ্দিন বাচ্চু।
উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ ইনামুল হাছান, প্যানেল মেয়র মোহাম্মদ জাহিদুল আযহার আলম বেপারী, মো. আজাদ হোসেন ও রোকেয়া বেগম, কাউন্সিলর মাইনুদ্দিন মিয়াজী, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, মোহাসীন ফারুক বাদল, সুমন তপাদার, মো. শাহআলম, কাজী মনির হোসেন, হাজী কবির হোসেন, বিল্লাল হোসেন, সামছুজ্জামান মুন্সী, মো. শাহআলম, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর মিনু আক্তার ও নাজমুন নাহার ঝুমু।
দলীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান উল্যাহ মৃধা, উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক জাকির হোসেন সোহেল, পৌর যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক তাজুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবায়েদুর রহমান খোকন বলি, পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাব্বিসহ আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।

১৭ আগস্ট, ২০২২।