মতলব উত্তরে জাতীয় শোক দিবসের মতবিনিময়

মনিরুল ইসলাম মনির
মতলব উত্তর উপজেলায় জাতীয় শোক দিবসের মতবিনিময়, মাদক, বাল্য বিবাহ ও ইভটিজিং প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। রোববার (৭ আগস্ট) দুপুরে মতলব উত্তর উপজেলার মুন্সি আজিম উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের অডিটরিয়ামের এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখের চাঁদপুর-২ নির্বাচনী আসনের সাংসদ আলহাজ অ্যাড. নুরুল আমিন রুহুল।
মুন্সি আজিম উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের আয়োজনে অনুষ্ঠানে অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং সহকারী অধ্যাপক আল-আমিন মিয়াজীর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি বক্তব্য রাখেন মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুস এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফুল হাসান।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার সাইফুল ইসলাম, মতলব উত্তর থানার এসআই আবু হানিফ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাজাহান প্রধান, ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন প্রধান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক সুজন ভূঁইয়া, উপজেলা যুবলীগ নেতা মাজহারুল ইসলাম ইকবাল, সুলতানাবাদ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল ইসলাম শান্ত, মুন্সি আজিম উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী তানিয়া আক্তার প্রমুখ।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। মাদক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নেই। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের মাদক সন্ত্রাস থেকে মুক্ত রাখতে অভিভাবকদের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই মাদক প্রতিরোধে সব শ্রেণির পেশার মানুষের আন্তরিক সহযোগিতা থাকতে হবে। তাহলেই সমাজ থেকে মাদক দূর হবে।
মাদক, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, বাল্যবিবাহ রোধে জনগণকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এসব রোধ করতে পারলে একটি সুন্দর সমাজ গড়া সম্ভব হবে। মাদক শুধু একজন মানুষকে নয় একটা পরিবারকে ধ্বংসের দিকেও ঠেলে দেয়।
নুরুল আমিন রুহুল বলেন, বিদ্যালয়ের শিক্ষক, মসজিদের ইমাম, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক কর্মী, ডাক্তার, আইনজীবী, প্রকৌশলী, ছাত্র-শিক্ষক, কৃষক-শ্রমিক-জনতাসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ, মাদক, ইভটিজিং বাল্যবিবাহ দমনে তৎপর হতে হবে। নিয়মতান্ত্রিকতা, আইনের প্রতি শ্রদ্ধা, দেশপ্রেম ও রাজনৈতিক সততাই হবে আমাদের বর্তমান মহাপ্রতিরোধ আন্দোলনের মূল শক্তি।
তিনি বলেন, অল্প বয়সে বিবাহের কারণে অল্প বয়সেই মেয়েরা গর্ভবতী হয়ে যায়, যা তাদের জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ। এই অবস্থার উত্তরণের জন্য চাই সামাজিক সচেতনতা। সামাজিকভাবে প্রতিরোধ ছাড়া এটা নির্মূল সম্ভব না।
এজন্য তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে উল্লেখ করে সাংসদ রুহুল বলেন, তরুণ সমাজ যেখানে এগিয়ে আসে সেটার সফলতা নিশ্চিত থাকে। তাই তরুণ সমাজকে দায়িত্ব নিয়ে তাদের প্রত্যেকের নিজ-নিজ এলাকায় এই সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ, মাদক, ইভটিজিং ও বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। তাহলেই কেবল সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ, মাদক, ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ সম্ভব।

০৮ আগস্ট, ২০২২।