কচুয়ায় প্রবাহমান খাল ভরাট করে বাড়ি-ঘর নির্মাণ

কচুয়া ব্যুরো
কচুয়া সদর দক্ষিণ ইউনিয়নের কোমরকাশা-নবাবপুর খালের উপর অবৈধভাবে বিভিন্ন স্থানে বাড়ি ঘর নির্মাণ ও বাঁধ দিয়ে খালের পানি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে কয়েকজন।
সরেজমিনে দেখা গেছে, কচুয়া-সাচার খালের রাজাপুর হতে কোমরাকাশা আান্দিরপাড় গাজীর বাড়ির কাছ দিয়ে নবাবপুর খালের সাথে প্রবাহমান খালের পানি ব্যবহার করে কৃষকরা কৃষি কাজে ব্যবহার করে আসছে। ব্রিটিশ আমল থেকে নৌকা দিয়ে কৃষকরা ওই খাল দিয়ে পাটসহ বিভিন্ন ফসল হাট-বাজারে আনা-নেয়া করতেন।
কিছু অসাধু মানুষ আন্দিরপাড় প্রধানিয়া বাড়ির কাছে প্রবাহমান খালে বাঁধ দিয়ে পাকা ঘাটলা করে মাছের চাষ করছে। তাঁদের মধ্যে আন্দিরপাড় গ্রামের মৃত শাছুজ্জামানের ছেলে ছফিউল্লাহ প্রবাহমান খালে বাঁধ দিয়ে পাকা ঘাটলা করে মাছের চাষ করছে, বদরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক তাহমিনা বেগম খাল ভরাট করে বাড়ি নির্মাণ, খলিলুর রহমান খাল ভরাট করে চাষাবাদ করছেন। ফলে একটুখানি বৃষ্টি হলে ফসলী জমি পানিতে তলিয়ে যায়।
গতবছর প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা চেয়ারম্যান বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে খালের প্রতিবন্ধকতা সরিয়ে পানি প্রবাহের উপযোগী করে দেন। কিছুদিন পর আবার একই স্থানে বাঁধ বা প্রতিবন্ধকতার পাশিপাশি খাল ভরাট করে ফেলে তারা।
এ ব্যাপারে কচুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপায়ন দাস শুভ বলেন, প্রবাহমান খালে বাঁধ দিয়ে বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে ফসলী জমি নষ্ট করা হলে আইনানুযায়ী খাল রক্ষায় ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।
০৯ মার্চ, ২০২১।