তীব্র তাপদাহে বিপর্যস্ত চাঁদপুরের জনজীবন

স্টাফ রিপোর্টার
বুধবার (২৮ এপ্রিল) চাঁদপুরে তাপমাত্রা ছিল প্রায় ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। কিন্তু ঐ তাপমাত্রা আরো বেশি মনে হয়েছে সবার কাছে। কালবৈশাখীর মৌসুমে বৃষ্টি না হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন। প্রচণ্ড এই তাপদাহের কবলে মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তার উপর রোজা ও করোনাকালীন লকডাউন চলমান থাকায় লোকজন হাপিয়ে উঠেছে।
গরমে নাজেহাল হওয়া মানুষজন জানিয়েছেন, ঘরে-বাইরে কোথাও শান্তি নেই। বাইরে বের হলে মনে হয়েছে রাস্তা থেকে ওঠা গরম তাপে যেন শরীর পুড়ছে। চারিদিকে যেন তাপের হাওয়া বইছে। ঘরে ফ্যানের বাতাসও গরম অনুভূত হয়েছে। শরীর ঘর্মাক্ত হচ্ছে। বিকেলের পর থেকে হালকা বাতাস হলেও তাপমাত্রা কমেনি। বাতাসের আর্দ্রতা বেশি থাকায় বেশি চাঁদপুরে গরম অনুভূত হচ্ছে। তাপদাহ অব্যাহত থাকতে পারে। একান্ত প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বাইরে বের হয়নি।
চাঁদপুর শহরে ঈদের কেনাকাটা করতে আসা মিশলা ইয়াসমিন মুনিয়া নামে এক নারী জানান, এই গরমে পথচলা বড় দায়। নিজেদের কিছু কেনাকাটা করতে হকার্স মার্কেটে এসেছি। চেষ্টা করছি তাড়াতাড়ি প্রয়োজন মিটিয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার। প্রচণ্ড এই গরমে ঘরে বাইরে কোথাও শান্তি নেই।
শহরের প্রাণকেন্দ্রে বাইতুল আমিন রেলওয়ে জামে মসজিদে নামাজ আদায় করতে আসা এক যুবক জানান, মসজিদে এসি চলছে, তারপরও যেন গরম বাতাস গা ছুঁয়ে যাচ্ছে। তাপদাহের কারণে রোজাদাররা রীতিমতো হাপিয়ে উঠছেন। সামান্য শান্তির জন্য মানুষ ছায়া ও শীতল পরিবেশ খুঁজছেন।
সুলতান ও গফুর আলী নামে দুই রিক্সাচালক বলেন, গরমে মনে হচ্ছে মাথা ঘুরে পড়ে গেলাম। বৃষ্টি হলে মানুষ শান্তি পেতো। এতো গরমে কাজ কর্ম করা যেন অসম্ভব মনে হচ্ছে। তারপরও অভাবের সংসার। আবার সামনে ঈদ, রয়েছে করোনাকালীন লকডাউন। মানুষজনেরও তেমন একটা চলাচল নেই। তাই বাধ্য হয়ে রিক্সা নিয়ে রাস্তায় নেমেছি।
চাঁদপুর আবহাওয়া অফিসের এক কর্মকর্তা জানান, এখন গরমের মৌসুম। হঠাৎ করে দমকা হাওয়া অথবা বৃষ্টি হয়ে থেমে যেতে পারে, কিন্তু গরমের তাপ আগের মতো থাকবে। তাছাড়া লঘুচাপ চলছে। যত গরম পড়বে তত লঘুচাপ নিম্নচাপে পরিণত হবে।
তিনি আরো জানান, গত ২৫ এপ্রিল চাঁদপুরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকভাবে অন্যান্য সময় থাকে ৩২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে যেকোন সময় কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে বলে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে।

২৯ এপ্রিল, ২০২১।