ফরিদগঞ্জে বর্বরোচিত হামলার মামলায় আটক ৩

ফেসবুকে ভিডিও চিত্র ভাইরাল, উপজেলাজুড়ে তোলপাড়

নারায়ন রবিদাস/রুহুল আমিন খান স্বপন
ফরিদগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের উপর হামলার ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম-ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ায় উপজেলাজুড়ে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ গত ১৫ মে রাতভর অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত ৩ জনকে আটক করে। অপরদিকে, ঘটনার শিকার ফয়েজ আহমেদ ঐ রাতেই বাদী হয়ে ফরিদগঞ্জ থানায় ৫ জনকে বিবাদী করে একটি মামলা দায়ের করেন।
আটকরা হলো- রুস্তুমপুর এলাকার মৃত হাফেজ আ. মান্নানের ছেলে দেলোয়ার হোসেন ও লোকমান আমিন, একই এলাকার মৃত আবু তাহের সোনা মিয়ার ছেলে মাহবুব আলম সোহেল।
সোমবার (১৬ মে) দুপুরে ফরিদগঞ্জ থানার প্রেস কনফারেন্স করে গণমাধ্যমকর্মীদের এমন তথ্য প্রদান করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হাজীগঞ্জ সার্কেল) সোহেল মাহমুদ। এসময় ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেন ও মামলার তদন্তকারী অফিসার মো. আ. কুদ্দুছ উপস্থিত ছিলেন।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রুস্তুমপুর এলাকার মৃত হাফেজ আ. মান্নানের ছেলে দেলোয়ার হোসেন, লোকমান আমিন, মোশারফ হোসেন বাহার, মোজাম্মেল হোসেন বাবুল ও নুরুল আমিন গংদের সাথে প্রতিপক্ষ ফয়েজ আহমেদ গংদের জমি সংক্রান্ত বিরোধ রয়েছে। ঐ বিরোধকে কেন্দ্র করে গত শুক্রবার (১৩ মে) সকালে প্রকাশ্য দিবালোকে অতর্কিতভাবে স্থানীয় রুস্তমপুর বাজারে দেলোয়ার হোসেন, লোকমান আমিন, মোশারফ হোসেন বাহার, মোজাম্মেল হোসেন ও নুরুল আমিন গংরা শেখ ফরিদ মৃধার পরিবারের উপর হামলা চালায়। লোহার রড, বাঁশ ও লাঠির আঘাতে আহত হন শেখ ফরিদ মৃধা (৪০), তার বড় ভাই ফয়েজ আহমেদ (৪৬) ও স্ত্রী ফাতেমা আক্তার। পরবর্তীতে স্থানীয়রা আমাদের ৩ জনকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসলে পুলিশ চিকিৎসার জন্য পাঠায়।
এদিকে, প্রকাশ্য দিবালোকে মধ্যযুগীয় ও বর্বরোচিত ঐ হামলার ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে নড়েচড়ে বসে পুলিশ। একপর্যায়ে রোববার রাতে পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদের দৃষ্টিগোচরে আসে ভিডিও চিত্রটি। তাৎক্ষণিক তিনি ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেনকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের নির্দেশনা প্রদান করেন।
অপরদিকে, ঘটনার শিকার ফয়েজ আহমেদ রোববার (১৫ মে) রাতেই বাদী হয়ে ৫ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে ঐ রাতেই ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেন ও মামলার তদন্তকারী অফিসার মো. আ. কুদ্দুছ অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত ৩ জনকে আটক করেন। পরে সোমবার দুপুরে তাদের চাঁদপুর আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ।

১৭ মে, ২০২২।