হাজীগঞ্জে পুকুরের পানিতে ডুবে ৩ জনের মৃত্যু

মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
হাজীগঞ্জে একদিনে পুকুরের পানিতে ডুবে ২ শিশু ও এক মধ্যবয়সী নারীসহ ৩ জন মারা গেছেন। বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকালে হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন ১২নং ওয়ার্ডের রান্ধুনীমুড়া এলাকার ছৈয়াল বাড়ির মনোয়ার হোসেনের ছোট মেয়ে খাদিজা আক্তার নামের আড়াই বছরের পানিতে পড়ে মৃত্যুবরণ করে।
একই দিন দুপুরে খালার বাড়িতে বেড়াতে এসে উপজেলার দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়নের কাপাইকাপ গ্রামের পুকুরের পানিতে ডুবে মারা যায় মাইশা আক্তার নামের ২ বছর বয়সি এক শিশু। সে মতলব দক্ষিণ উপজেলার বাটরা গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মেয়ে।
এছাড়া এদিন বিকালে উপজেলার বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের মোল্লাডহর গ্রামের ছৈয়াল বাড়ির মৃত আনোয়ার মিয়ার স্ত্রী শিরিন বেগম (৫০) দুপরে পুকুরের পানিতে ডুবে মৃত্যুবরণ করেন। এদিকে একদিনে পুকুরে পানিতে ডুবে ২ শিশু ও এক নারীসহ তিনজনের মৃতের ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে আসে।
জানা গেছে, পৌরসভাধীন রান্ধুনীমূড়া গ্রামে আড়াই বছরের শিশু খাদিজা আক্তার খেলার সময় পরিবারের অগোচরে বাড়ির পুকুরে পড়ে ডুবে যায়। পরে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায় তাকে পানিতে ভাসতে দেখেন পরিবারের লোকজন। এ সময় দ্রুত শিশুটিকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।
অপরদিকে দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়নের কাপাইকাপ গ্রামে ২ বছর বয়সি মাইশা আক্তার খালার বাড়িতে বেড়াতে এসে খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। পরে শিশুটিকে খুঁজে না পেয়ে পুকুরে জাল বেড় দিয়ে মাইশার নিথর দেহ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। পরবর্তীতে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত্যু ঘোষণা করে।
একই দিন বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের শিরিন বেগম দুপুরের রান্না শেষে পুকুরে গোসল করতে যায়। দীর্ঘক্ষণ তিনি ঘরে ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন পুকুরে গিয়ে তার মরদেহ পানিতে ভাসমান অবস্থায় দেখতে পায়। পরে স্থানীয় মৃতুদেহ উদ্ধার করে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শিরিন বেগম মৃগী রোগে আক্রান্ত ছিলেন।
পানিতে ডুবে নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আহমেদ তানভির হাসান বলেন, নিহতদের হাসপাতালে আমরা হাসপাতালে মৃত অবস্থায় পেয়েছি।
এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ বলেন, নিহতদের পরিবারের কোন অভিযোগ না থাকায় এবং লিখিত আবেদনের ভিত্তিতে ময়নাতদন্ত ছাড়া মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।
০৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১।