৪ দফা জানাযা শেষে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন জনপ্রিয় চেয়ারম্যান আব্দুল হাই

মাহফুজ মল্লিক
হাজারো মানুষের ভালবাসা নিয়ে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন মতলব দক্ষিণ উপজেলার জনপ্রিয় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুল হাই। শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ৪ দফা জানাযা শেষে খাদেরগাঁও ইউনিয়নের পুটিয়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে মরহুম আব্দুল হাইয়ের লাশ দাফন করা হয়। প্রথম ও দ্বিতীয় জানাযা সকাল ১০ টায় ও বেলা ১১টায় ঢাকায় এবং বাদ আছর মতলব নিজ গ্রাম পুটিয়াতে পর-পর দু’টি জানাযা অনুষ্ঠিত হয়।
মতলব দক্ষিণ উপজেলার খাদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, মতলব রোটারী ক্লাবের সভাপতি, সাপ্তাহিক দিন বদলের আলোর সম্পাদক ও প্রকাশক, উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, শাহাজউদ্দিন ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান রোটারিয়ান আব্দুল হাই গতকাল ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি…….রাজিউন)। তিনি গতকাল শনিবার ভোর সাড়ে ৫টায় ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ইন্তেকাল করেছেন।
মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে ও ১ মেয়ে, আত্মীয়-স্বজন, রাজনৈতিক সহকর্মী এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
শেষ জানাযার আগে মতলব দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সফিকুল ইসলাম সাগরের পরিচালনায় আব্দুল হাইয়ের জীবনাদর্শ নিয়ে সংক্ষিপ্ত স্মৃতিচারণ করেন মতলব দক্ষিণ উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও মতলব পৌরসভার সাবেক মেয়র এনামুল হক বাদল, উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এমএ শুক্কুর পাটওয়ারী, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ঐ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান সরকার, খাদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ মন্জুর হোসেন রিপন, মতলব পৌর বিএনপির সভাপতি শোয়েব আহম্মেদ সরকার, খাদেরগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ঢালী ও মরহুমের বড় ভাই।
জানাজায় সামাজিক, রাজনৈতিক, শিক্ষক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, দিনমজুরসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন। পরে মরহুমের কফিনে উপজেলা, পৌর ও ইউনিয়ন বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানান।
আব্দুল হাইয়ের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আলহাজ ড. মো. জালাল উদ্দিন। তিমি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদন জানান।
রোটারিয়ান আব্দুল হাই তার বাবার নামে এলাকায় শাহাজউদ্দীন ফাউন্ডেশন নামে ট্রাস্ট গড়ে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসহ গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে অবদান রেখে গেছেন।
১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০।