আগুনে পুড়লো প্রতিবন্ধী খাদিজার বসতঘর

মানবেতর জীবনযাপন

কচুয়া ব্যুরো
ভয়াবহ অগ্নিকা-ে শ্রবণ ও বাক প্রতিবন্ধী খাদিজার বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। অন্যের বাড়িতে কাজ করে ও মানুষের সাহায্য নিয়ে তৈরি করেছিল পুরে যাওয়া সে টিনের ঘরটি। ঘটনাটি ঘটেছে গত ৩০ জুন ভোর রাতে কচুয়া থানা সংলগ্ন সুবিধপুর গ্রামের সর্দার বাড়িতে।
জানা গেছে, ওইদিন মধ্যরাতে খাদিজার বসতঘরে আগুন জ্বলতে দেখতে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে পানি দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ আনার চেষ্টা করে ততোক্ষণে খাদিজার স্বপ্নের বসতঘর পড়ে ছাই হয়ে যায়। ঘটনার দিন খাদিজা ও তার স্বামী কেউ বাড়িতে ছিল না। পরদিন লোকজনের মুখে শুনে বাড়িতে এসে দেখে অবশিষ্ট কিছুই রইলো না।
সংবাদ পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল খান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জহিরুল ইসলাম মজুমদার, আওয়ামী লীগ নেতা জামাল হোসেন ও ইউপি সদস্যসহ অগ্নিকান্ডের ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেন এবং সরকারিভাবে সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন।
আগুনে বসতঘর পুড়ে যাওয়ার ফলে শ্রবণ ও বাক প্রতিবন্ধী খাদিজা মানবেতর জীবনযাপন করছে।
খাদিজার স্বামী ওই গ্রামের হানিফের ছেলে হেলাল অসুস্থ বেকার কোন কাজ কর্ম করে না। খাদিজার এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। ছেলেকে অর্থের অভাবে এতিমখানা মাদ্রাসায় ভর্তি করেছে ও ৬ বছরে মেয়েকেও মহিলা মাদ্রাসায় ভর্তি করেছে। খাদিজা মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কাজ করে সংসার চালাতো।
এলাকাবাসী অসহায় শ্রবণ ও বাক প্রতিবন্ধী খাদিজার পরিবারের পাশে উপজেলা প্রশাসন ও বিত্তবানদের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

৩ জুলাই, ২০২২।