কচুয়া পৌর মেয়র স্বপনের ছুটি না নিয়েই থাইল্যান্ড ভ্রমণ

শওকত আলী
স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে ছুটি না নিয়ে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন কচুয়া পৌরসভার মেয়র মো. নাজমুল আলম (স্বপন)। যাওয়ার সময় তিনি নিয়মানুসারে তার অবর্তমানে কাউকে দায়িত্ব বুঝিয়েও দিয়ে যাননি। এমনকি মেয়রের জন্য নির্ধারিত সরকারি গাড়িটিও পৌর এলাকায় রেখে যাননি। বর্তমানে তিনি থাইল্যান্ডে অবস্থান করছেন বলে পৌরসভার প্যানেল মেয়র-১ আমিনুল হক জানিয়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত সপ্তাহে মেয়র নাজমুল আলম দেশ থেকে থাইল্যান্ডে ভ্রমণে গিয়েছেন। আগামি ৩০ জুন তিনি দেশে আসবেন। কিন্তু তিনি যাওয়ার সময় নিয়মানুসারে কাউকে দাপ্তরিকভাবে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে যাননি। তিনি এভাবে এর আগেও বেশ কয়েকবার বিদেশে ভ্রমণ করেছেন।
কচুয়া পৌরসভার সচিব জহিরুল ইসলাম বলেন, মেয়র সাহেব গত দু’দিন ঢাকায় আছেন। আগামি ৩০ তারিখে আসবেন। মোবাইল নম্বর বন্ধ কেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি উত্তর দিতে পারেননি। যে কোন কারণে তিনি বিদেশে যাওয়ার তথ্যটি গণমাধ্যমের কাছে গোপন করেন এবং প্যানেল মেয়র সত্যতা স্বীকার করেন।
এদিকে, গত ২৫ জুন পদ্মাসেতু উদ্বোধনের দিন উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না মেয়র নাজমুল আলম স্বপন। তার জন্য অনুষ্ঠানের নির্ধারিত আসনটিও ফাঁকা ছিল। এর আগেই তিনি না জানিয়ে বিদেশে ভ্রমণে গিয়েছেন। মেয়র নাজমুল আলমের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে (০১৮১৩—৭৬) সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত একাধিকবার ফোন করা হলে বন্ধ পাওয়া যায়।
কচুয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র-১ আমিনুল ইসলাম বলেন, মেয়র নাজমুল আলম থাইল্যান্ডে আছেন। তিনি আগামি ৩০ জুন দেশে আসবেন। যাওয়ার সময় তিনি আমাকে মৌখিক দায়িত্ব দিয়েছেন। মেয়রের গাড়ি পৌরসভায় নেই- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গাড়ি সবসময় মেয়র সাহেবের সাথেই থাকে।
চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগে যোগাযোগ করে জানা গেছে, মেয়র নাজমুল আলম কোন ছুটির আবেদনের কপি দিয়ে যাননি এবং মৌখিকভাবেও জানাননি। তবে তিনি দেশের বাইরে গেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকেও জানানোর কথা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে তথ্য নিয়ে জানা গেছে সেখানেও মেয়র কোন তথ্য দিয়ে যাননি।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইমতিয়াজ হোসেন বলেন, কচুয়া পৌরসভার মেয়রের সম্পর্কে আমার কাছে কোন তথ্য নেই। তবে আমি খোঁজ নিয়ে দেখবো। যদি তিনি আইনের বাইর গিয়ে কোন কাজ করেন এবং সে বিষয়ে সত্যতা পাই, তাহলে আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবো।
বিদেশে ভ্রমণের জন্য ছুটির বিধান থাকলেও মেয়র নাজমুল আলম ছুটি নেননি এবং লিখিতভাবে তার দায়িত্ব কাউকে বুঝিয়ে দেননি। এই বিষয়ে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের পরিচালক (স্থানীয় সরকার) অতিরিক্ত দায়িত্ব মোহাম্মদ মিজানুর রহমান মুঠোফোনে জানান, দেশের বাইরে যেতে হলে বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় থেকে ছুটি নিতে হবে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও পৌরসভার মেয়র ছুটি নিবেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে।
স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের নগর উন্নয়ন অনু বিভাগের পৌরসভা-১ এর কর্মকর্তা (উপ-সচিব) মো. আব্দুর রহমান বলেন, কচুয়া পৌরসভার মেয়র নাজমুল আলম স্বপন আমাদের কাছ থেকে বিদেশে যাওয়ার জন্য অনুমতি চেয়ে কোন আবেদন করেননি। তিনি এক ঘণ্টা সময় নিয়ে আবেদন আছে কিনা দপ্তরে অনুসন্ধান করেন। এক ঘণ্টা পরে জানান, কচুয়ার মেয়র আমাদের কাছ থেকে কোন ছুটি নেননি এবং এই সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র আমাদের দপ্তরে নেই।

২৮ জুন, ২০২২।