শাহরাস্তির উঘারিয়া ইউসি উবি’র শ্রেণিকক্ষ সংকটে পাঠদান ব্যাহত

নোমান হোসেন আখন্দ
শাহরাস্তির ঐতিহ্যবাহী উঘারিয়া ইউসি উচ্চ বিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষ সংকটের অভাবে শিক্ষার্থীদের স্বাভাবিক পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। শিক্ষকদের জন্য রক্ষিত ভবনটি জরাজির্ণ হওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অফিস করছেন শিক্ষকরা। বিদ্যালয়ের জরাজির্ণ ছাদের পলেস্তরা ধ্বসে পড়ে বিদ্যালয়ের নৈশপ্রহরী কাম দারোয়ান মো. আতিকুজ্জামান মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রহমত উল্ল্যাহ জানান, ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যাপীঠটি ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও ভবনের অভাবে শ্রেণিকক্ষ সংকট কাটছে না। জেএসসি ও এসএসসিতে বরাবরই ধারাবাহিক ফলাফল সন্তোষজনক। বিগত বিভিন্ন সরকারের পালাবদল হলে ও বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের সময় বিদ্যালয়টি ২০১২ সালে ৪ তলা ভীত বিশিষ্ট (বর্তমানে ৩য় তলা) নির্মাণ কাজ সম্পন্ন একমাত্র দৃশ্যমান ভবন রয়েছে। এছাড়া একটি টিনের চালা ঘর ও পরিত্যক্ত ভবন রয়েছে। শিক্ষার্থীরা এ ঘর ও পরিত্যক্ত ভবনে অতি ঝুঁকিপূর্ণভাবে অধ্যায়ন করছেন। বিদ্যালয়ের একমাত্র তৃতীয়তলা ভবনটিতে প্রতিনিয়তই শিক্ষার্থীরা গাদাগাদি করে ক্লাস করতে হচ্ছে। বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত ৫শ’ ৫০ জন শিক্ষার্থী অধ্যায়ন করছেন। এ ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়ন করে আলোকিত মেধাবী ও প্রতিষ্ঠিত শিক্ষার্থীরা রাষ্ট্র ও সমাজের কল্যাণে নিবেদিত হয়ে কাজ করে আলোকিত করছেন।
বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, প্রতিনিয়তই শ্রেণিকক্ষের অভাবে তাদের চলমান পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। শ্রেণিকক্ষের অভাবে একটি কক্ষে ২টি ক্লাস করতে হচ্ছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিত্যাক্ত ভবনে ও তাদের ক্লাস করতে হয়। এছাড়া ভবনের অভাবে ল্যাব, লাইব্রেরী, কমনরুম করা সম্ভব হচ্ছে না। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে একটি বহুতল ভবন অনুমোদনের জন্য, শিক্ষামন্ত্রী, সংসদ সদস্য, চাঁদপুর জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আশু হস্তক্ষেপ ও সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

০৯ মার্চ, ২০২২।