টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর প্রার্থনা

ইলশেপাড় ডেস্ক
উদ্বোধনের পর সোমবার (৪ জুলাই) প্রথমবারের মতো পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে সড়কপথে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় গ্রামের বাড়িতে গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে গিয়ে অনেকদিন পর নিজের পৈতৃক বাড়ি পরিদর্শন করেন প্রধানমন্ত্রী।
সংক্ষিপ্ত এই সফরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় এবং মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল। তাদের দু’জনকে সঙ্গে নিয়ে পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কবরে ফাতেহা পাঠ করেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর বঙ্গবন্ধু এবং ১৫ আগস্ট-এ নৃশংস হত্যাযজ্ঞের শিকার বঙ্গবন্ধু পরিবারের অন্য শহীদদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করেন প্রধানমন্ত্রী ও তার সন্তানরা।
এর আগে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
পুষ্পস্তবক অর্পণের পর, তিনি স্বাধীনতার মহান স্থপতির স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধার নিদর্শন হিসেবে সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বিপথগামী কিছু সেনা সদস্যের হাতে পরিবারের বেশিরভাগ সদস্যসহ নৃশংসভাবে খুন হন।
টুঙ্গিপাড়া যাওয়ার পথে শেখ হাসিনা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পদ্মা সেতুর জাজিরা পয়েন্টের সার্ভিস এলাকায় কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেন।

পদ্মা সেতুতে মা-বোনের সঙ্গে উচ্ছ্বসিত জয়

পদ্মা সেতু হয়ে সড়কপথে সোমবার গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় ও মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুলও ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে।
যাত্রাপথে পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে একটি সেলফি তুলেছেন সায়মা ওয়াজেদ পুতুল। সজীব ওয়াজেদ জয় ছবিটি তার ফেসবুক পেজে শেয়ার করেছেন।
পরে জাজিরা প্রান্তে যাত্রা বিরতি নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখান থেকে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছান তারা।
সেখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দোয়া ও মোনাজাত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় কয়েকটি কর্মসূচিতে যোগদান শেষে বিকেলে ঢাকায় ফিরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
গত ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওইদিন মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন। ছেলে সজিব ওয়াজেদ জয় সেদিন দেশে ছিলেন না।

০৫ জুলাই, ২০২২।