কচুয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৪, থানায় অভিযোগ

আহসান হাবীব সুমন
কচুয়ায় সম্পত্তিগত বিরোধ নিয়ে প্রতি পক্ষের হামলা ৫ জন আহত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহতরা বর্তমান কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার উত্তর কচুয়া ইউনিয়নের কড়ইয়া গ্রামে।
আহতরা হলেন- লিলু রানী (৪০), বাধন সরকার (২৫), রাজিব সরকার (২০) ও বকুল রানী (৪০)।
সরেজমিন ও কচুয়া থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উত্তর কচুয়া ইউনিয়নের কড়ইয়া গ্রামের সঞ্জন সরকার, দীলিপ সরকার ও পার্শ¦বর্তী মতিলালের ছেলে বিপ্লব টিটুর সাথে সম্পত্তির বাক-বিতন্ডা নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছিল। গত বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) সঞ্জন সরকার, দীলিপ সরকারের জায়গায় বিপ্লব টিটু লোকজন নিয়ে জোরপূর্বক বসতঘর তুলতে গেলে তাকে সঞ্জন সরকার বাঁধা প্রধান করলে ক্ষিপ্ত হয়ে বিপ্লব টিটুসহ তার লোকজন সঞ্জন সরকারের সাথে বাকবিতন্ডা জড়িয়ে পরে। সঞ্জন সরকারের স্ত্রী লিলু রানী, সন্তান বাধন ও রাজিব এগিয়ে আসলে তাদের উপর এলাপাথারী মারধর শুরু হয়। হামলায় সঞ্জন সরকারের স্ত্রী মাথা ফেটে যায়। এসময় সঞ্জনের স্ত্রী-সন্তানসহ মোট ৪ জন গুরুতর আহত হয়েছেন।
সংবাদ পেয়ে কচুয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে দ্রুত পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ও উভয় পক্ষকে শান্ত করে এবং আহতদের দ্রুত চিকিৎসা নিয়ে কচুয়া থানা অভিযোগ দিতে বলে।
এ বিষয়ে কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, আগেও কচুয়া থানায় তাদের উভয়ের সম্পত্তিগত বিরোধের অভিযোগ ছিল সেটা তদন্ত অফিসার সমাধান করে দিয়েছিলো। বর্তমানও সঞ্জন সরকার ও টিটু গং সম্পত্তিগত বিরোধ নিয়ে বাক-বিতন্ডায় জড়িয়ে পরার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তাদের আগে চিকিৎসা নিয়ে কচুয়া থানায় অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ প্রাপ্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে প্রতিবেদক পরদিন বৃহস্পতিবার বিপ্লব টিটুদের বক্তব্য নেওয়ার যোগাযোগ চেষ্টা করলে টিটু তার পরিবার কোন সদস্য ওই সময়ে ঘটনাস্থল বা বাড়িতে কেউ ছিল না।
পরে কচুয়া থানায় সঞ্জন সরকার লিখিত একটা অভিযোগ দায়ের করেন।
০৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১।